প্রায়ই জিজ্ঞাসিত প্রশ্ন ও উত্তর

বাংলাদেশের কি নিজস্ব কয়লা সম্পদ আছে? থাকলে তা কোথায় আছে?

হ্যাঁ, বাংলাদেশের উত্তর-পশ্চিম অঞ্চলে বেশ কয়েকটি কয়লাক্ষেত্রে বাণিজ্যিকভাবে উত্তোলনযোগ্য কয়লার মজুদ আছে। এছাড়া দেশের দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে, পূর্ব-উত্তরাঞ্চলে পীট কয়লার মজুদ রয়েছে, তবে এসব সঞ্চয়ক্ষেত্রের বাণিজ্যিক উত্তোলনযোগ্যতা নিরূপিত হয়নি।

বাংলাদেশের এ কয়লার মান কেমন?

উত্তর পশ্চিমাঞ্চলের এ কয়লার মান সাধারণভাবে যথেষ্ট ভালো, এ কয়লা উন্নত মানের। এটি বিটুমিনাস ধরনের কালো কয়লা, যা উচ্চ তাপজ্বলন ক্ষমতা সম্পন্ন (গড়ে ৬,৬০০ কিলোক্যালরী/কেজি), কম ছাই বা অ্যাশ (১২-১৫%) ও কম গন্ধক বা সালফার (১% এর কম) যুক্ত।

প্রশ্নঃ বাংলাদেশে কি কোন কয়লা খনি আছে?

দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুর উপজেলার বড়পুকুরিয়াতে একটি ভূগর্ভস্থ কয়লা খনি রয়েছে, যার উন্নয়ন ১৯৯৪ ইং সালে শুরু হয়ে ২০০৫ এর শেষের দিকে আংশিক বাণিজ্যিক উৎপাদন আরম্ভ হয়। এর উৎপাদন ক্ষমতা বছরে ১০ লাখ টন, তবে পত্রিকান্তরে জানা যায় যে বর্তমানে তা লক্ষ্যমাত্রার থেকে অনেক কম উৎপাদন করছে এবং নানাবিধ কারিগরি ও ব্যবস্থাপনা জটিলতায় এ যাবত কখনও এর বার্ষিক কলক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে পারেনি।

প্রশ্নঃ দেশে ভবিষ্যতে কি আরো কয়লা খনি হবার সম্ভাবনা আছে?

হ্যাঁ, বর্তমানে ফুলবাড়ীতে এবং ভবিষ্যতে খালাসপীর, দীঘিপাড়া এবং জামালগঞ্জে কয়লা খনি উন্নয়নের সম্ভাবনা আছে।

প্রশ্নঃ দেশে বর্তমানে কয়লার ব্যবহার কি?

বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির ওপর নির্ভর করে এর পাশেই ২৫০ মেগাওয়াট কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে। নানা কারিগরী জটিলতায় কয়লা উৎপাদন ব্যাহত হওয়ার প্রেক্ষিতে বড়পুকুরিয়া বিদ্যুত প্ল্যান্টের উৎপাদনও মাঝে মাঝে বিঘ্নিত হয়। সড়ক ও নৌপথে আমদানী করা কয়লা প্রধানতঃ দেশের ইটের ভাটায় ব্যবহৃত হয়। কয়লা নির্ভরযোগ্য জ্বালানী হিসেবে অন্যান্য শিল্প কারখানাতেও ব্যবহৃত হয়। নিশ্চিত ও সুলভে পাওয়া গেলে এদেশেও বিভিন্ন শিল্পে কয়লা ব্যবহৃত হবে।

প্রশ্নঃ বাংলাদেশে কয়লার প্রধান কি কি ব্যবহার হতে পারে?

এ কয়লা প্রাকৃতিক গ্যাসের বিকল্প, সাশ্রয়ী ও সহজলভ্য জ্বালানী হিসেবে ব্যবহার হতে পারে। বিদ্যুত উৎপাদনে এর প্রধান ব্যবহার, একই সাথে ইটের ভাটায় ও গৃহস্থালী কাজে ব্রিকেট হিসেবে এর ব্যবহার হতে পারে। বাংলাদেশের কয়লার প্রায় এক চতুর্থাংশ ‘সেমি সফ্‌ট কোকিং কোল’ যা ইস্পাত শিল্পে ব্যবহার উপযোগী। আন্তর্জাতিক বাজারে এর চাহিদা রয়েছে এবং এ ধরনের কয়লা বাজারজাত করার মধ্য দিয়ে উৎপাদনকারী দেশগুলো আর্থিক দিক থেকে লাভবান হয়। বাংলাদেশের জন্যও সে সম্ভাবনা রয়েছে।

প্রশ্নঃ ফুলবাড়ী কয়লা খনি হতে কী পরিমাণ বিদ্যুত উৎপাদন করা যাবে?

সাধারণভাবে ১০০০ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন একটি বিদ্যুত কেন্দ্রের জন্য বছরে ফুলবাড়ী/বড়পুকুরিয়া মানের তিন মিলিয়ন টন কয়লার প্রয়োজন হয়। সে হিসেবে ফুলবাড়ীর কয়লা দিয়ে প্রায় ৪,০০০ মেগাওয়াট পর্যন্ত বিদ্যুৎ উৎপাদন করা সম্ভব।
এশিয়া এনার্জি খনিমুখে ১০০০ মেগাওয়াট ক্ষমতার কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের প্রস্তাব দিয়েছে, যার ক্ষমতা ২০০০ মেগাওয়াট পর্যন্ত বাড়ানো যাবে।

প্রশ্নঃ কয়লা পোড়ালে পরিবেশ দূষণ হয় বলে জানা যায়। এর প্রতিকার কি আছে?

যে কোন জীবাশ্ম জ্বালানী পোড়ালেই পরিবেশ দূষণ হতে পারে, এর মাত্রা ও পরিমাণ নির্ভর করে জ্বালানীর মান ও পোড়ানোর প্রযুক্তির উপর। বর্তমানে প্রযুক্তিগত অনেক উন্নতি হয়েছে (ক্লিন কোল টেকনোলজি) এবং কয়লা ভিত্তিক বড় তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র প্রায় দূষণমুক্ত অথবা দূষণ সীমিত ও গ্রহণযোগ্য মাত্রায় রেখে বিদ্যুৎ উৎপাদনে সক্ষম।

প্রশ্নঃ বাংলাদেশের মানুষ প্রধানতঃ গ্যাস ব্যবহারে অভ্যস্ত এবং সাধারণতঃ কয়লাকে অনেকে নোংরা জ্বালানী মনে করে । দেশের জন্য কি কয়লা ব্যবহার জরুরী?

খুবই জরুরী। কয়লা আল্লাহর দেয়া একটি নিয়ামত, বাংলাদেশের জন্য এটি একটি আশির্বাদ। শুধু একক জ্বালানী (যেমন গ্যাস) নির্ভর হওয়া খুবই ঝুঁকিপূর্ণ, বিশেষ করে যেখানে গ্যাসের মজুদের পরিমাণও সীমিত। তাই প্রাপ্ত কয়লা সম্পদের দ্রুত ও সর্বোত্তম ব্যবহার নিশ্চিত করা হলে বিদ্যুৎ সরবরাহে উন্নতি হবে, আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়ন হবে এবং প্রাকৃতিক গ্যাসের উপর চাপ কমবে।

প্রশ্নঃ এশিয়া এনার্জি বাংলাদেশে কবে থেকে কাজ করছে?

  ১৯৯৮ সাল থেকে।

প্রশ্নঃ এশিয়া এনার্জি’র বাংলাদেশে ফুলবাড়ী কয়লা প্রকল্প ছাড়া আর কোন প্রকল্প আছে?

না।তবে এশিয়ার এনার্জি’র মালিক কোম্পানী জিসিএম এর দক্ষিণ আফ্রিকাসহ অন্যান্য দেশে খনি শিল্পে বিনিয়োগ রয়েছে।

প্রশ্নঃ এশিয়া এনার্জি’র সাথে বাংলাদেশ সরকারের কি কোন চুক্তি আছে?

সরকারের সাথে এশিয়া এনার্জি’র ‘বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চলে কয়লা অনুসন্ধান ও খনি উন্নয়নের’ চুক্তি রয়েছে।

প্রশ্নঃ এশিয়া এনার্জি কি ধরনের বিদেশী কোম্পানী?

এটি অষ্ট্রেলিয়ান কোম্পানী। তবে এর মালিক কোম্পানী ‘জিসিএম’ একটি ব্রিটিশ কোম্পানী। বাংলাদেশের বিদ্যমান কোম্পানী আইন অনুযায়ী ‘এশিয়া এনার্জি’ একটি নিবন্ধিত ও আইনানুগভাবে পরিচালিত কোম্পানী।

প্রশ্নঃ এশিয়া এনার্জি কি বিদেশী বিনিয়োগকারী?

হ্যাঁ। এ কোম্পানী বাংলাদেশে তার কার্যক্রম দেশের বাইরে থেকে আনা সম্পূর্ণ নিজস্ব তহবিলের যোগান থেকে করে থাকে। দেশের আইন অনুযায়ী সংশ্লিষ্ট দপ্তরে, কোম্পানীটি একটি বিদেশি বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান হিসেবে নিবন্ধিত।

প্রশ্নঃ এশিয়া এনার্জি’র বিনিয়োগ কতটা ঝুঁকিপূর্ণ?

খনিজ সম্পদ অনুসন্ধান ও এর উন্নয়ন সবসময়ই ঝুঁকিপূর্ণ বিনিয়োগ। তদুপরি দীর্ঘমেয়াদে খনি শিল্পে বিনিয়োগ উচ্চমাত্রায় বিনিয়োগ ঝুঁকির বিষয়। এশিয়া এনার্জি আশা করে সরকার প্রকল্পের অনুমোদন দেবেন এবং এশিয়া এনার্জি বাংলাদেশ সরকার ও স্থানীয় সম্প্রদায়সহ অন্যান্য অংশীদারদের সহযোগিতায় পরিবেশ সম্মত ও সামাজিকভাবে গ্রহণযোগ্য প্রক্রিয়ায় এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে পারবে। এ প্রকল্প বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান সমস্যা ‘জ্বালানীর অভাব জনিত সমস্যা’ নিরসনে দীর্ঘমেয়াদী ভূমিকা পালন করবে। প্রকল্প সন্তোষজনকভাবে বাস্তবায়িত ও পরিচালিত হলে তা কোম্পানী ও বাংলাদেশের উভয়ের জন্যই লাভজনক হবে।

প্রশ্নঃ এশিয়া এনার্জি’র মত কোন বিদেশী সংস্থার মাধ্যমে না করে ফুলবাড়ী প্রকল্প দেশী সংস্থা ও বিনিয়োগে করা কি সম্ভব নয়?

তাত্ত্বিকভাবে সম্ভব, তবে বাস্তবে তা কঠিন। বিনিয়োগ ঝুঁকি, প্রযুক্তিগত ও ব্যবস্থাপনা দক্ষতা ও অর্থায়ন (শুরুতেই প্রায় ১.০ বিলিয়ন ডলার) খুব বড় বাধা, আর এ কারণে বিদেশী বিনিয়োগ ও বিদেশী সংস্থার সাথে দেশের প্রচলিত আইনানুসারে দু’পক্ষের জন্যই গ্রহণযোগ্য ও লাভজনক আয়োজনের মাধ্যমে এ রকম প্রকল্প বাস্তবায়ন বাঞ্চনীয়। দেশী প্রতিষ্ঠানের এখন অবধি এ জাতীয় প্রকল্প বাস্তবায়নের মত আর্থিক, কারিগরী ও ব্যবস্থাপনা সামর্থ অনুপস্থিত। সার্বিকভাবে, ফুলবাড়ী প্রকল্পের মত আন্তর্জাতিক মানের প্রকল্প বাস্তবায়নের অভিজ্ঞতা দীর্ঘমেয়াদে স্থানীয় সামর্থ্য গড়ে তুলতে সহায়তা করবে।

প্রশ্নঃ এশিয়া এনার্জি প্রকল্প বাস্তবায়ন বিষয়ে যেসব পরিকল্পনা প্রণয়ন করছে বা প্রতিশ্রুতি দিচ্ছে তার বাস্তবায়নের নিশ্চয়তা কি?

প্রথমতঃ এশিয়া এনার্জির নিজস্ব অঙ্গীকার এবং সামাজিক ও পরিবেশগত দায়বদ্ধতা। এশিয়া এনার্জি দীর্ঘদিন ধরে প্রকল্প বাস্তবায়ন করবে এবং স্থানীয়দের সাথেই থাকবে, ফলে স্থানীয় মানুষের সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত না করে তাদের পক্ষে প্রকল্প বাস্তবায়ন সম্ভব হবেনা। এ প্রকল্পের অর্থায়নে যে আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো ভূমিকা রাখবে, তারা এশিয়া এনার্জি’র কাজ পর্যবেক্ষণ করবে এবং এশিয়া এনার্জি সবকিছু যথাযথভাবে করতে তাদের কাছেও দায়বদ্ধ। অন্যথায় অর্থায়ন বন্ধ হয়ে প্রকল্প বন্ধ হয়ে যাবে, যা কারুর জন্যই কাম্য নয়। একইভাবে প্রকল্প বাস্তবায়নকালীন  নিরপেক্ষ ও স্বাধীন পরিবীক্ষণের ব্যবস্থা থাকবে। সর্বোপরি বাংলাদেশ সরকার ও স্থানীয় মানুষ, প্রতিষ্ঠানসমুহ এশিয়া এনার্জি’র কাজ পর্যবেক্ষণ করে তা যথাযথ থাকার ব্যাপারে পরামর্শ, নির্দেশ, সহযোগিতা প্রদান করতে পারবে।

প্রশ্নঃ ফুলবাড়ী কয়লা প্রকল্পে অনেক জমির প্রয়োজন হবে এবং অনেক মানুষ স্থানান্তরিত হবেন বলে জানা যায়। এ ধরনের উদাহরণ কি দেশে আরো আছে?

ফুলবাড়ী প্রকল্পে পর্যায়ক্রমে খনির ৩৫ বছরের অধিক সময়কালে প্রায় ৫,৯০০ হেক্টর (একক সময়ে সর্বোচ্চ ২,০০০ হেক্টর) জমির এবং প্রায় ৪০,০০০ মানুষের পুনঃস্থাপনের/পুনর্বাসনের প্রয়োজন হবে। যমুনা সেতু প্রকল্প, রাজউকের পূর্বাচল নতুন শহর প্রকল্প, তিস্তা বাঁধ প্রকল্প, গঙ্গা-কপোতাক্ষ প্রকল্পে বড় ধরনের জমি অধিগ্রহণ এবং ফুলবাড়ী প্রকল্পের তুলনায় বেশী সংখ্যায় মানুষের স্থানান্তর করার উদাহরণ রয়েছে। প্রস্তাবিত পদ্মা সেতুর জন্য উল্লেখযোগ্য পরিমাণ জমির এবং বিপুল সংখ্যক মানুষের স্থানান্তর প্রয়োজন হচ্ছে।

প্রশ্নঃ বাংলাদেশ সাধারণভাবে খুবই বন্যাপ্রবণ এলাকা। এরকম এলাকায় কি ফুলবাড়ী কয়লা প্রকল্পের মত প্রকল্প বাস্তবায়ন সম্ভব?

বাংলাদেশ সাধারণভাবে বর্ষা মৌসুমে বন্যা প্রবণ এলাকা হলেও ফুলবাড়ী প্রকল্প এলাকা সাধারণভাবে বন্যামুক্ত এলাকা। অঞ্চলটি উচুঁ বরেন্দ্র ভূমির অংশ বিশেষ এবং সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৩০ মিটারের মতো উচ্চতায় অবস্থিত। এখানে বড় কোন নদী নেই। ফুলবাড়ী শহরের মাঝখান দিয়ে প্রবাহিত ছোট নদী ‘ছোট যমুনা’ এ অঞ্চলের প্রধান নদী, যা শুষ্ক মৌসুমে প্রায় শুকনো থাকে। এ অঞ্চলে ফুলবাড়ী কয়লা প্রকল্প বাস্তবায়ন ভালভাবে সম্ভব।

প্রশ্নঃ বাংলাদেশে বর্ষা মৌসুমে খুব বৃষ্টি হয়। এরকম বৃষ্টিপ্রবণ এলাকায় উন্মুক্ত খনন পদ্ধতির খনির কি কাজ করার কথা?

বৃষ্টির সময় খনিখাদে জমা হওয়া বৃষ্টির পানি শক্তিশালী পাম্পের সাহায্যে উত্তোলন করে যথাযথভাবে অপসারণ করা হবে। আসলে বৃষ্টির পানি নয়, উন্মুক্ত খনন পদ্ধতির খনি পরিচালনার জন্য খনিখাদ শুকনো রাখতে ভূ-গর্ভস্থ পানি উত্তোলন ও ব্যবস্থাপনা তুলনামূলকভাবে অনেক বড় কাজ। এ কাজ খনির গোটা জীবনকাল ধরে চলতে থাকবে। ভারত ও ইন্দোনেশিয়ার মত বৃষ্টি প্রবণ এলাকায় অনেক উন্মুক্ত কয়লা খনি সফলভাবে কাজ করছে।

প্রশ্নঃ ফুলবাড়ী অঞ্চল থেকে সরে অন্য কোন অঞ্চলে এ প্রকল্প বাস্তবায়নে বাধা কোথায়?

এ প্রকল্পটি কোন সাধারণ শিল্প কারখানা বা গৃহায়ন প্রকল্প নয়, যা এক জায়গার বদলে অন্য জায়গায় সরিয়ে করা যায়। কয়লা সম্পদ ওখানকার মাটির নীচে রয়েছে, ফলে ওখান থেকেই তা আহরণ করতে হবে।

প্রশ্নঃ এশিয়া এনার্জি উন্মুক্ত খনন পদ্ধতির কয়লা খনির কথা বলছে কেন? পাশেই তো বড়পুকুরিয়া ভূগর্ভস্থ কয়লা খনি রয়েছে, সেরকম খনি করার বাধা কোথায়?

ভূতাত্ত্বিক গঠন, কয়লাস্তরের অবস্থান ও গভীরতা, উপরিস্থিত শিলাস্তর ও পানিবাহি স্তরের ধরণ, কয়লাস্তরের সংখ্যা ও পুরুত্ব, সম্পদ আহরণ, খনি ও শ্রম নিরাপত্তা ও আর্থিক উপযোগিতা ইত্যাদিসহ বিভিন্ন বিষয় খনি পদ্ধতির ধরণ নির্ধারণ করে। ফুলবাড়ী প্রকল্প এলাকায় পরিচালিত সম্ভাব্যতা সমীক্ষা থেকে বেরিয়ে এসেছে যে, ভূতাত্ত্বিক, অর্থনৈতিক, সামাজিক ও পরিবেশগত বিচারে এখানে উন্মুক্ত খনন পদ্ধতির খনি সর্বোত্তম এবং এখানে বড়পুকুরিয়ার মতো খনি করা সম্পদ আহরণ, খনি ও শ্রম নিরাপত্তাসহ কোন বিচারেই যথাযথ হবেনা। বর্তমান পদ্ধতিতে বড়পুকুরিয়াতে মজুদ ৩৯০ মিলিয়ন টন কয়লার মাত্র ২০-২৫ মিলিয়ন টন আহরণ সম্ভব, সেখানে ফুলবাড়ীতে উন্মুক্ত খনি পদ্ধতিতে মজুদ ৫৭২ মিলিয়ন টন কয়লার ৫০০ মিলিয়ন টনের বেশী আহরণ করা যাবে। এ ছাড়াও উন্মুক্ত পদ্ধতিতে কয়লার পাশাপাশি কয়লার উপরিস্থ বিভিন্ন মূল্যবান সহ-সম্পদ যেমনঃ- কাঁচ-বালি, চীনামাটি, নুড়িপাথর উত্তোলন করা সম্ভব। তাছাড়া ভূতাত্ত্বিক বিশেষত্বের কারণে ভূগর্ভস্থ খনন পদ্ধতি ঐ অঞ্চলে অনেক বেশী ব্যয়বহুল যা চূড়ান্ত বিচারে উত্তোলিত কয়লাকে আর্থিকভাবে অনাকর্ষণীয় পণ্যে রূপান্তর করবে।

প্রশ্নঃ উন্মুক্ত খনন পদ্ধতিতে কি জমি বেশী লাগে?

তুলনামূলকভাবে এবং সাময়িকভাবে বেশী লাগে, তবে উন্মুক্ত খনন পদ্ধতির খনিতে আগে থেকে পরিকল্পনার আওতাভূক্ত থাকায় জমি পুনর্বাসিত হয়ে প্রাকৃতিক অবস্থায় ফেরত আনা হয় এবং কৃষি, বন ইত্যাদিসহ অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমি ব্যবহারে তা কাজে লাগে। উন্মুক্ত খনন পদ্ধতি আসলে ‘সাময়িক ভূমি ব্যবহার পরিবর্তন’, ভূমির কোন স্থায়ী লোকসান নয়। বাংলাদেশের ভূগর্ভস্থ খনির ভূমি সংক্রান্ত অভিজ্ঞতা খুব তিক্ত। কোন এক সুন্দর সকালে স্থানীয়রা আকস্মিক আবিস্কার করে তাদের জমি দেবে যাচ্ছে খনি কার্যক্রমের জন্য।

প্রশ্নঃ পরিবেশের উপর কি খনির প্রভাব পড়বে?

পড়বে, তবে তা সহনীয় ও গ্রহণযোগ্য মাত্রায় রাখা হবে। যে কোন শিল্প ও অবকাঠামো উন্নয়নের ক্ষেত্রেই পরিবেশগত প্রভাব রয়েছে। সামাজিক ও পরিবেশগত প্রভাব সংরক্ষণের ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক মানদন্ড বজায় রেখে এশিয়া এনার্জি ফুলবাড়ী কয়লা খনি উন্নয়নে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। যেকোন প্রতিকূল প্রভাব প্রশমণ ও নিয়ন্ত্রণ করতে সকল ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে এবং সম্ভাব্য ক্ষেত্রে পরিবেশকে আরো উন্নত করা হবে। উদাহরণস্বরূপ খনি হতে বিশুদ্ধ পানি উত্তোলন করে তা সেচকাজ এবং শহর ও গ্রামের ব্যবহারের জন্য সরবরাহ করা, প্রয়োজনীয় পরিমাণ পানি ভূমিতে পুনঃপ্রবেশ (ইনজেক্ট) ঘটানো, এবং খনিখাদ পুনর্ভরণের পর পুনরায় সেখানে বনায়ন ও বৃক্ষ রোপণ কাজ পরিচালনা করা হবে। অবশ্য কোন গুরুত্বপূর্ণ শালবন কিংবা বাস্তুসংস্থানের জন্য সংবেদনশীল কোন বিল (প্রাকৃতিক জলাশয়) খনি এলাকার মধ্যে অবস্থিত নয়।

প্রশ্নঃ খনি করতে গিয়ে যে গাছপালা কাটা পড়বে তার ক্ষতি কিভাবে পূরণ করা হবে?

চেষ্টা করা হবে যত কম গাছ কাটা যায় এবং যত দেরীতে কাটা যায়। খনির প্রয়োজনে গাছ কাটার কাজ হবে পর্যায়ক্রমিক। যে সব গাছ কাটা পড়বে তার আর্থিক ক্ষতিপূরণ ও পরিবেশগত ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে ব্যাপক বৃক্ষরোপণ ও বনায়ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হবে। খনির চারপাশের বাঁধ ও বাফার এলাকায় বন সৃজন করা হবে, আচ্ছাদন শিলাস্তুপ (ওভার বারডেন ডাম্প) এলাকায় বনাঞ্চল সৃষ্টি করা হবে এবং পুনর্বাসিত এলাকাতেও গাছপালা লাগানো হবে। একইসাথে বৃহত্তর এলাকায় সবুজের পরিমাণ বাড়ানোর জন্য চারা সরবরাহসহ বৃক্ষায়নে উৎসাহজনক ও সমর্থনসূচক কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হবে।

প্রশ্নঃ খনি হতে পানি নিষ্কাশনের ফলে কি আশেপাশের এলাকায় পানির অভাব দেখা দেবে?

স্বাভাবিক অভ্যাসগত প্রাপ্যতার কিছু সাময়িক অসুবিধা হতে পারে, তবে পানির অভাব হবেনা। পৃথিবীর অনেক উন্মুক্ত খনি ব্যবস্থাপনার মত এখানেও খনি হতে উত্তোলিত পানি গ্রামসমূহে গৃহস্থালী কাজে ও সেচ কাজের জন্য ব্যবহৃত হবে। এশিয়া এনার্জি মোট ২৫০ কিলোমিটার ভূ-গর্ভস্থ পানির লাইন (পাইপ) স্থাপনের পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। এছাড়াও প্রচুর পরিমাণ পানি ভূ-গর্ভের পানি স্তরে পুনরায় প্রবেশ (ইনজেক্ট) ঘটিয়ে খনির প্রভাবিত এলাকার বাইরের ভূ-গর্ভস্থ পানির স্তর স্বাভাবিক রাখা হবে। এটি একটি বিশ্বব্যাপী স্বীকৃত খনির পানি ব্যবস্থাপনা পদ্ধতি।

প্রশ্নঃ কয়লা প্রক্রিয়াজাত করতে অনেক পানি লাগবে। এ পানি কোথায় ও কিভাবে ফেলা হবে?

কয়লা প্রক্রিয়াজাতকরণ প্লান্টে পানির ব্যবহার হবে। যথাসম্ভব এ পানি পুনর্ব্যবহার করা হবে এবং অবশেষে বর্জ্য পানি উপযুক্ত পরিশোধন ব্যবস্থার মাধ্যমে পরিশোধিত করে দেশের পরিবেশগত মানমাত্রা অনুসারে অবমুক্ত করা হবে। কয়লা প্রক্রিয়াজাতকরণ প্লান্ট, প্রস্তাবিত কয়লাভিত্তিক সন্নিহিত বিদ্যুৎ কেন্দ্রসহ শিল্পে ব্যবহারের পানিও খনির জন্য উত্তোলিত পানি থেকে যোগান দেয়া হবে।

প্রশ্নঃ খনিখাদ বিশাল হবে বলে শোনা যায়, এর ভবিষ্যত কি?

খনির কার্যক্রম চলার সময় এক অংশে কয়লা তোলার কাজ, এক অংশে ভূমি পুনর্বাসনের কাজ এবং এক অংশে খনির জন্য মাটি খোড়ার কাজ চলতে থাকবে। খনির জন্য ব্যবহৃত জমির প্রায় সবটুকুই পুরোপুরি পুনর্বাসিত হবে এবং একেবারে দক্ষিণে প্রায় ৭০০ হেক্টরের একটি মিঠাপানির জলাশয় থাকবে। তবে এ জলাশয় খনির আয়ুকালের শেষের বছরগুলোতে (প্রায় ৩০ বছর পর) তৈরী হবে। পুনর্বাসিত জমি কৃষি থেকে শুরু করে অন্যান্য বিভিন্ন ভূমি ব্যবহারে কাজে লাগবে।

প্রশ্নঃ যেহেতু কিছু নীচু জলাভূমি খনি এলাকায় পড়বে, এতে করে এলাকার মাছের উপর প্রভাব কি রকম পড়বে?

খনি এলাকায় প্রধানতঃ চাষাবাদের জমি রয়েছে এবং জলাভূমির পরিমাণ সামান্য। এ অঞ্চলের প্রধান জলাভূমি (আশুরার বিল) খনি প্রকল্প এলাকার বেশ বাইরে। অন্যান্য যেসব ছোট বিল বা জলাভূমি দক্ষিণ পশ্চিম এলাকায় পড়েছে, তাদেরকে সংরক্ষণ করে প্রকল্পের কাজ করা হবে। এলাকার মাছ চাষ বৃদ্ধির জন্য বিকল্প অর্থনৈতিক কর্মকান্ড হিসেবে খনি এলাকার বাইরে মাছচাষকে উৎসাহিত ও উদ্বুদ্ধ করা হবে এবং এ বিষয়ে প্রকল্প থেকে সহযোগিতা প্রদান করা হবে। ইতিমধ্যেই পরীক্ষামূলক প্রকল্প পরিচালনার মাধ্যমে স্থানীয়দের সাথে খনি সংশ্লিষ্ট এলাকায় মাছ চাষ বৃদ্ধির নানামুখী উদ্যোগ পরিচালনা করা ও জনগণের অংশগ্রহণমূলক তৎপরতা পর্যালোচিত হয়েছে।

প্রশ্নঃ যে সকল লোকের জমি অধিগ্রহণ করা হবে তাদের জীবনযাপনের জন্য কি ব্যবস্থা হবে?

তাদের বর্তমান বাজারমূল্যে পূর্ণ ক্ষতিপূরণ প্রদান এবং বিকল্প টেকসই জীবিকাসহ পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করা হবে। পশ্চিম ফুলবাড়ীতে পরিকল্পিত নতুন শহর ও প্রকল্প এলাকার চারপাশে আধুনিক সুযোগ-সুবিধা সম্বলিত নতুন নতুন গ্রাম তৈরী করা হবে। খনির প্রভাব এলাকার মানুষের জীবিকা পুনর্বাসন ও বহুমুখীকরণের বিভিন্ন উদ্যোগ নেয়া হবে।

প্রশ্নঃ যারা পুনর্বাসিত হবেন তারা কি জানেন তারা কী ক্ষতিপূরণ পাবেন?

সাধারণভাবে অনেকে জানেন, তবে প্রত্যেকে সঠিকভাবে জানেন এ কথা বলা যাবেনা। তবে পুনর্বাসনের অনেক আগেই এরা প্রত্যেকে এ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট তথ্য জানবেন এবং কাউকেই যথাযথ ক্ষতিপূরণ প্রদান, পুনর্বাসনের ব্যবস্থা নিশ্চিতকরণ ও পরিবর্তিত জীবন ব্যবস্থার ধারণা ছাড়া তার বর্তমান আবাস ও অবস্থান থেকে স্থানান্তর করা হবে না।

প্রশ্নঃ প্রকল্প এলাকার আদিবাসীসহ অনেকের ভূমির বা সম্পত্তির মালিকানার কাগজপত্র ঠিক নেই। তাদের ব্যাপারে ক্ষতিপূরণ ব্যবস্থা কি হবে?

হ্যাঁ, এ সমস্যা আদিবাসীদের মধ্যে যেমন, তেমনি বেশ কিছু বাঙালী পরিবারেরও রয়েছে। তবে এদেরকে যথাযথভাবে প্রকল্পের ক্ষতিগ্রস্ত জনগোষ্ঠীর মধ্যে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে এবং এরা তাদের প্রাপ্য ক্ষতিপূরণ ও পুনর্বাসনের সুবিধাদি পাবেন। আদিবাসীদের বিষয়টি অধিকতর সংবেদনশীল হওয়ায়, তাদের বিষয়টি বিশেষ গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করা হয়েছে এবং একটি ‘আদিবাসী উন্নয়ন পরিকল্পনা’ বাস্তবায়নের জন্য তৈরী করা আছে ।এই পরিকল্পনার আওতায় আদিবাসীদের জীবনমান উন্নত করার জন্য নানা কর্মসূচী বাস্তবায়ন করার কথা রয়েছে।

প্রশ্নঃ কৃষিনির্ভর মানুষ যারা স্থানান্তরিত ও পুনর্বাসিত হবেন তাদের জন্য বিকল্প জীবিকার কি ব্যবস্থা হবে?

এ লক্ষ্যে পুনর্বাসন পরিকল্পনার অংশ হিসাবে জীবিকা পুনরুদ্ধার পরিকল্পনা প্রস্তুত করা হয়েছে যা পর্যায়ক্রমে আরো বিস্তারিতভাবে প্রতি পুনর্বাসন পর্যায়ের মানুষের জন্য প্রস্তুত ও বাস্তবায়ন করা হবে।

প্রশ্নঃ ক্ষতিগ্রস্ত মানুষদেরকে কি খনিতে চাকুরী প্রদান করা হবে?

বাস্তবিকভাবেই কর্মী নির্বাচনের ক্ষেত্রে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিদের অগ্রাধিকার প্রদান করা হবে। খনির কাজে অংশগ্রহণে আগ্রহীদের বিভিন্ন প্রশিক্ষণ কর্মসূচীর মাধ্যমে প্রশিক্ষিত করারও উদ্যোগ নেয়া হবে।

প্রশ্নঃ কতগুলো নতুন কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হবে?

খনির কার্যক্রম চলাকালীন প্রত্যক্ষভাবে স্বল্পমেয়াদী ২,১০০টি এবং দীর্ঘমেয়াদী ১,২০০টি কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হবে। এ ছাড়াও খনি সহযোগী যে সকল শিল্প কারখানা গড়ে উঠবে সেখানে হাজারো কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হবে। প্রকল্পের প্রত্যেক প্রত্যক্ষ জনশক্তির বিপরীতে পরোক্ষভাবে আরো ৮-১০ জনের কর্মসংস্থানের সুযোগ হবে, ফলে আশা করা যায় খনি ও খনি সংশ্লিষ্ট অবকাঠামোর জন্য প্রায় ১৭,০০০ নতুন কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে। প্রকল্পের কারণে আরো অনেক সহায়ক শিল্প-কারখানা গড়ে উঠবে, যা দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ঘটাবে, হাজারো নতুন কর্মসংস্থানের সুযোগ হবে।

প্রশ্নঃ প্রকল্প এলাকায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষি উৎপাদনের কি হবে?

খনির জন্য ধাপে ধাপে ভূমি ব্যবহারের ফলে একসাথে কম কৃষিজমি ব্যবহৃত হবে। একটি পৃথক গবেষণায় দেখা যায় যে, পুনর্বাসনকৃত জমি ও খনির পার্শ্ববর্তী এলাকার জমিতে কৃষিকাজে উন্নত পদ্ধতি প্রয়োগে দক্ষভাবে চাষাবাদ করে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষি উৎপাদন ফিরিয়ে আনা সম্ভব এবং এই ধারাবাহিকতা বজায় থাকলে কৃষি উৎপাদন আরো বৃদ্ধি করা যাবে। এর বিস্তারিত ’কৃষির উপর খনির প্রভাব’ প্রতিবেদনে দেখা যেতে পারে।

প্রশ্নঃ স্থানীয় জনগোষ্ঠি কিভাবে উপকৃত হবেন?

প্রকল্প এলাকাকে আর্থিকভাবে শক্তিশালী এলাকায় রূপান্তর এবং উন্নত অবকাঠামো ও নতুন সুবিধাসমূহ যেমন উন্নত স্কুল-কলেজ, হাসপাতাল, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান, রাস্তাঘাট, বাজারঘাট, কৃষি ব্যবস্থা, শিল্প কারখানা ইত্যাদি প্রদান করে অত্র এলাকার সকল মানুষের জীবন ব্যবস্থার একটি সার্বিক টেকসই উন্নয়ন অর্জনই প্রধান লক্ষ্য।

প্রশ্নঃ এশিয়া এনার্জি’র সাথে সরকারের সম্পাদিত চুক্তিটিতে রয়্যালটি নির্ধারণ করা হয়েছে ৬%। এটা কি খুবই নয়?

৬% রয়্যালটি, দেশের বিদ্যমান খনি ও খনিজ সম্পদ বিধিতে নির্ধারিত। এই রয়্যালটি সাধারণভাবে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতোই। তবে রয়্যালটি হচ্ছে খনি থেকে দেশের পুরো প্রাপ্তি বা মুনাফার একটি ক্ষুদ্র অংশ মাত্র। এই রয়্যালটির সাথে যুক্ত হবে করপোরেট ট্যাক্স (৪৫%), আমদানী শুল্ক (২.৫%), উইথ হোল্ডিং ট্যাক্স অন ডিভিডেন্ড (৫%), পরিবহন মাশুল, বন্দর চার্জ ইত্যাদি। আর এই সব সমেত বাংলাদেশ খনির পুরো মেয়াদকালে ৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলারেরও বেশী আয় করবে। এখানে উল্লেখ্য যে, তেল গ্যাস খাতের প্রকল্পগুলোর মতো এই প্রকল্পে খরচ উশুল-জাতীয় (কস্ট রিকাভারি) কোন ব্যাপার নেই।

প্রশ্নঃ প্রকল্প এলাকায় প্রকল্প বিষয়ে কি সাধারণ মানুষের সাথে কথা বলা হয়েছে এবং তাদের মতামত গ্রহণ করা হয়েছে?

হ্যাঁ, তবে এটি একটি চলমান প্রক্রিয়া এবং খনির মেয়াদকালে সবসময়ই এটা চলতে থাকবে। এশিয়া এনার্জি একটি আন্তর্জাতিক বিনিয়োগ কোম্পানি বলে প্রকল্প বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে সামাজিক লাইসেন্স নেয়ার ধারণায় বিশ্বাস করে। আইনগত লাইসেন্স এর পাশাপাশি সামাজিক লাইসেন্স সাধারণ মানুষের সঙ্গে মিথস্ক্রিয়া এবং তাদের আস্থা অর্জনের সঙ্গে সম্পৃক্ত। বিস্তারিত ‘পাবলিক কনসাল্টেশন এবং ডিসক্লোজার প্লান’ এ দেখা যেতে পারে।

প্রশ্নঃ এই খনি হতে বাংলাদেশ কী অর্জন করবে?

আমদানী শুল্ক, ট্যাক্স ও রয়্যালটির প্রত্যক্ষ আয় ছাড়াও খনি প্রকল্পটি দেশকে বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য একটি দীর্ঘমেয়াদী ও সাশ্রয়ী নতুন জ্বালানী উপহার দেবে। একমাত্র এই একটি খনিই সারা বাংলাদেশের জন্য অন্ততঃ ৩০-৩৫ বছরের বিদ্যুৎ উৎপাদনের জ্বালানীর নিরাপত্তা দিতে পারে। এই কয়লা বাংলাদেশে সীমিত প্রাকৃতিক গ্যাস সম্পদ দ্বারা বিদ্যুৎ উৎপাদনের ওপর চাপ কমিয়ে দীর্ঘমেয়াদে কল-কারখানা ও গৃহস্থালীতে গ্যাসের চাহিদা মেটাতে পারে। এই প্রকল্পটি অর্থনৈতিক দিক থেকে দেশের একটি অনগ্রসর এলাকাকে গড়ে তুলবে একটি খনি ও শিল্প এলাকা হিসেবে। এটি কেবল একটি খনি নয়, এটি একটি ‘সুযোগ’, যা দেশের আর্থসামাজিক অবস্থার বড় ধরণের ইতিবাচক রূপান্তর ঘটাতে সাহায্য করবে।

প্রশ্নঃ ফুলবাড়ী প্রকল্প বাস্তবায়ন না হলে কার ক্ষতি হতে পারে?

প্রধানতঃ দেশের ও মানুষের ক্ষতি। কেননা এ প্রকল্প দেশের প্রাকৃতিক সম্পদ আহরণ ও ব্যবহারের সুযোগ সৃষ্টি করবে যা দেশের ও মানুষের কাজে লাগবে। এ প্রকল্প যেহেতু দেশের জ্বালানী সমস্যা সমাধানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে, তাই এ প্রকল্প বাস্তবায়িত না হলে জ্বালানী প্রাপ্যতা এবং নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ লক্ষ্য পূরণে বড় ধরনের সমস্যা হতে পারে। তদুপরি এ প্রকল্প উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের জনগণের আর্থসামাজিক অবস্থা ও ভাগ্যোন্নয়নে বড় ভূমিকা রাখতে পারে। এর বাস্তবায়ন না হলে দারিদ্র একইভাবে চলতে থাকার পাশাপাশি অবকাঠামোগত উন্নতি ও বিকল্প জীবিকার সুযোগ বাধাগ্রস্ত হবার আশংকা রয়েছে । তাছাড়া জ্বালানীর ক্রমবর্ধমান চাহিদা মেটাতে দেশকে ক্রমেই বেশী বেশী জ্বালানী আমদানী অব্যাহত রাখতে হবে। এ খনি বাস্তবায়ন না হলে নির্ভরযোগ্য ও টেকসই জ্বালানী সুলভে স্থানীয় উৎস থেকে পাবার সুযোগ থেকে দেশ বঞ্চিত হবে; পক্ষান্তরে, অত্যন্ত ব্যয়বহুল জ্বালানী আমদানী নির্ভরতা বাড়াবে, যা উন্নয়নের চালিকাশক্তি বিদ্যুতের মূল্য ইতোমধ্যে বাড়িয়ে দিয়েছে, ভবিষ্যতে আরও বাড়িয়ে দেবে। সাধারণ মানুষের কাছে বিদ্যুত সোনার হরিণই থেকে যাবে। সবার জন্য বিদ্যুত নিশ্চিত করার সরকারি পরিকল্পনা থেকে যাবে সূদুর পরাহত।